Breaking News
* জাপানের ওপর দিয়ে মিসাইল ছুড়ল উ. কোরিয়া * গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ৬১৯, শনাক্ত পৌনে ২ লাখ * আবাসন খাতের উন্নয়নে প্রয়োজন আন্তর্জাতিক সহযোগিতা: গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী * ‘জঙ্গিরা যতই স্মার্ট হোক র‌্যাব তার চেয়েও বেশি স্মার্ট’: র‌্যাবের মহাপরিচালক * বিদেশে অপহরণ-মুদ্রা পাচার চক্রের মূলহোতা গ্রেপ্তার * খালেদা জিয়ার নেতৃত্বেই যুগপৎ আন্দোলন: মির্জা ফখরুল * ২০২২ সালে চিকিৎসাশাস্ত্রে নোবেল পেলেন সুভান্তে প্যাবো * মাথার দাম ৩০ লাখ ডলার, সোমালিয়ায় নিহত আল-শাবাব নেতা * দুই ফিলিস্তিনিকে গুলি করে মারলো ইসরায়েল * ব্রাজিলে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন গড়িয়েছে দ্বিতীয় পর্বে: লড়বেন লুলা-বলসোনারো
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বাধিক আলোচিত

POOL

বিশ্বের অন্য দেশের তুলনায় আমরা সুখে আছি, বেহেশতে আছি— পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এমন উক্তি ‘জনগণের সঙ্গে তামাশা’ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।আপনি কি তাঁর সাথে একমত?

Note : জরিপের ফলাফল দেখতে ভোট দিন

খরচ কাটছাঁট করছে মধ্য ও নিম্ন আয়ের মানুষেরা

18-09-2022 | 05:03 pm
বিশেষ প্রতিবেদন

খাবার খরচ কাটছাঁট করছে মধ্য ও নিম্ন আয়ের মানুষেরা।

ঢাকার পল্টনে ভরদুপুরে রুটি-কলা খাচ্ছিলেন একটি অনলাইন পত্রিকার সাংবাদিক । দুপুরে ভাত না খেয়ে রুটি-কলা কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, রাস্তার সাধারণ কোনো রেস্তোরাঁতে এক বেলা সবজি, ডাল ও ভাত খেতেও ১০০ টাকা লেগে যায়। সংসারের অতি প্রয়োজনীয় খরচের টাকা বাঁচাতে তিনি দুপুরে রুটি-কলা খেয়ে কাটানো শুরু করেছেন।

সংবাদ কর্মী বলেন, "গত জানুয়ারি মাসে বাসাভাড়া ৫০০ টাকা বেড়েছে। ছেলের স্কুলে যাওয়া-আসার জন্য দিনে রিকশাভাড়া লাগত ২০ টাকা করে ৪০ টাকা। এখন লাগে ৬০ টাকা। চাল, ডাল, তেল, চিনিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যে ৫০০০ টাকার স্থলে ৮০০০ হাজার টাকা লাগছে। অফিসে যাওয়া-আসা করতেও বাসভাড়া বেশি দিতে হচ্ছে। কিন্তু আমার আয় এক বছর আগে যা ছিল, এখনো তা-ই আছে। ফলে সংসারের অনেক প্রয়োজনীয় খরচ কমাতে হয়েছে।"

তিনি বলেন, "আগে প্রতি সপ্তাহে একবার গরুর গোশত কেনা হতো, এখন সেটি পুরোপুরি বন্ধ। প্রতিমাসে এক কেজি গুঁড়াদুধ কেনা হতো সেটিও বন্ধ করেছি। ছেলের প্রাইভেটের জন্য ৩০০০ টাকা ব্যয় হতো সেটি বন্ধ রেখেছি। ছোটখাটো রোগে ওষুধ কেনাও বন্ধ করেছি। তবুও ধার-কর্জ করে সংসার চালাতে হচ্ছে।"

ঢাকার নিম্নআয়ের মানুষের বসবাসস্থল খ্যাত ডেমরার বাসিন্দা আজিজুল হক মিন্টু। তার চারজনের পরিবারের বর্তমান ব্যক্তিগত খরচের হিসাব তুলে ধরেছেন এই প্রতিবেদকের কাছে।

তিনি বলেন, "শনিবারের বাজারদর অনুযায়ী হিসাব করে দেখেছি চলতি মাসে আমার পরিবারের জন্য এক বস্তা চাল, পাঁচ লিটার তেল, মাছ, সবজি, ডাক্তারের ওষুধ, খুব প্রয়োজনীয় কসমেটিকস, মুদিবাজার, গ্যাস বিল, পানি বিল, বিদ্যুৎ ও বাসা ভাড়ায় ২৬,৩০০ টাকা দরকার হবে। কিন্তু আমার বেতন ২২,৫০০ টাকা।"

"গোশত, দুধ ও ফলসহ প্রোটিন খাওয়া এবং কোনো ধরনের পোশাক-আশাক না কিনলেও বেতনের চেয়ে ৪০০০ টাকা বেশি খরচ হবে। এক মাস আগেও সব খরচ বাদ দিয়ে প্রতিমাসে ২-৩ হাজার টাকা হাতে থাকতো। খরচ কমিয়েও এখন টিকে থাকা সম্ভব হচ্ছে না," যোগ করেন আনোয়ার হোসেন।

উভয়ের মতো সংকটে পড়েছে সাড়ে ৩ কোটির বেশি নিম্নআয়ের মানুষ। এমনই একজন মৌলভীবাজার রাজনগর আইডিয়েল স্কুলের শিক্ষক মোহাম্মদ কবির হোসেন।

জ্বালানী তেলের মূল্যবৃদ্ধির বিপাকে পড়েছেন এ শিক্ষক। বাড়ি থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরের স্কুলে বাইকে চলাচল করেন তিনি।

তিনি বলেন, "জুলাই মাসে বেতন বাড়লো ৮৮৫ টাকা। চলতি মাসে তেলের দাম বাড়াতে শুধু মোটরসাইকেলের খরচই বাড়ছে ১০০০ টাকা। এছাড়াও সবকিছুর দাম বেড়ে সংসার খরচ বেতনের দ্বিগুণ হয়েছে। গোশত, ফল খাওয়া বন্ধ হয়ে গেছে। পোশাক, কসমেটিকসও কিনছি না। ঋণের বোঝাও বাড়ছে।"

রাজধানীর খিলগাঁওয়ে বেসরকারি কোম্পানির চাকরিজীবি সাইদুর রহমান বলেন, "দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির কারণে খরচ অনেক কমিয়েও কয়েক মাস ধরে পারিবারিক খরচ বেড়েছে তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার টাকা। আর জ্বালানীর মূল্য বৃদ্ধিতে তা গিয়ে দাঁড়ালো সাড়ে চার হাজার টাকায়।"

সংকটে সরকারি ছোট চাকরিজীবিরাও:
নন-ক্যাডার সরকারি চাকরিজীবিদের ফেসবুকে প্রাইভেট গ্রুপে দেয়া একটি পোস্টে উঠে এসেছে তৃতীয় শ্রেণী ১০-২০তম গ্রেডের কর্মচারীদের সংকটের কথা। দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির কারণে সংসার চালানো যাচ্ছে না উল্লেখ করে সেখানে অসহায়ত্বের প্রকাশ ঘটিয়েছেন এক পুলিশ সদস্য।

২০তম গ্রেডের একজন কর্মচারী ৮২৫০ টাকা বেতন পান উল্লেখ করে তিনি বলেন, "দ্রব্যমূল্যের এ বাজারে বেতনের টাকায় শুধু চাল আর সবজি কিনতেই বেতনের টাকা শেষ হয়ে যায়। বর্তমান বাজার পরিস্থিতি বিবেচনা করলে ৮২৫০ টাকা বেতনের কর্মচারীরা কতটা অসহায়ভাবে দিনযাপন করছে তারা ছাড়া কেউ বুঝবে না। আমার ৮০% বন্ধুবান্ধব সহকর্মী লোন তুলে সংসারের খরচ মেটাচ্ছে, কেউ কেউ টপআপ লোন মানে দ্বিতীয়বার লোন তুলেছে।"

তিনি বলেন, "আমরা ১১-২০ গ্রেডের বেতন বৈষম্য নিয়ে আন্দোলন করতে পারি না। আমাদের সমস্যার সমাধানও হয় না। বড় বড় কর্তারা ৮ গুণ পর্যন্ত বেশি বেতন পান, তাই তারা আমাদের কথা ভাবেন না।"

নিম্ন আয়ের বিপদ আরো বেশি:
রিক্সাচালক আজহারুল হক (৩২) বরিশাল থেকে জীবিকার তাগিদে ঢাকায় আসেন ২০০৭ সালে। চলমান মুদ্রাস্ফীতিতে রাজধানীতে আগের মতো তেমন যাত্রী পাচ্ছেন না, কমেছে দৈনিক আয়ও। আগে দৈনিক ৫০০-৭০০ টাকা আয় হলেও বর্তমানে তা হয়ে গেছে ৪০০-৫০০ টাকা। ঢাকায় মেসভাড়া, খাওয়া খরচ ও গ্রামে পরিবারকে টাকা পাঠাতে হিমশিম খাচ্ছেন আজহারুল ।

আজহারুল হক সিভিল ভয়েসকে বলেন, "মানুষের হাতে টাকা না থাকায় ও জিনিসপত্রের দাম বাড়ায় মানুষ আগের মতো রিক্সায় আর তেমন প্রয়োজন না হলে ওঠে না, একটু কাছের রাস্তা হলে ইদানিং হেঁটেই চলে যায়, তাই আমাদেরও আয় কমে গেছে। কিন্তু জিনিসপত্রের দামে বাজারে আগুন, আমাদের তো সব জিনিস দুইগুণ বেশি দামে কিনতে হচ্ছে।"

সিপাহীবাগে বস্তিতে প্রায় ২৫ বছর ধরে সপরিবার থাকেন দিনমজুর কামাল। পরিবারের বড় ছেলের বউ ব্যতীত সবাই-ই ছোটখাট কাজ করে। এরপরেও মাসের খরচ মেটাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে তাদের। জ্বালানী তেলের মূল্য বৃদ্ধির পরে নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় শাকসবজিই খেয়ে যাচ্ছেন গত এক মাস ধরে।

কামাল সিভিল ভয়েসকে বলেন, "এক ছেলে আর আমি লেবারের কাজ করি। সপ্তাহে ১ দিন কাজ পেলে ২ দিন বসে থাকতে হয়। দৈনিক হাজিরা ৬০০ টাকার বেশি দেয় না। স্ত্রী বাসাবাড়িতে কাজ করে মাসে ৫ হাজার টাকার মতো উপার্জন করে। পরিবারের ৫ জন সদস্যের মধ্যে ৪ জনে মাসে ২৫ হাজার টাকার মতো আয় করি। এ টাকা দিয়ে বাসা ভাড়া, বিদ্যুত বিল, গ্যাস, চাল-ডালেই চলে যায় ২০ হাজার টাকার মতো। ঈদের পরে আর মুরগি কিংবা গরুর মাংস খেতে পারিনি। মাঝে মাঝে ডিম খেতাম কিন্তু গত ১০ দিন ধরে ডিমও খেতে পারছি না। শাক-সবজি আর আলু দিয়েই খাচ্ছি গত কয়েকদিন ধরে।"

কমেন্ট

<<1>>

নাম *

কমেন্ট *

সম্পর্কিত সংবাদ

© ২০১৬ | এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি | dainikprithibi.com
ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্ট - মোঃ রেজাউল ইসলাম রিমন