Breaking News
* 'বিদেশ ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞায় এবার সব বাণিজ্যিক ব্যাংকের কর্মকর্তারা' * 'অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের জামিনের আবেদন নামঞ্জুর' * '১৫ কিলোমিটার সড়কে হাজার হাজার মানুষের মানববন্ধন' * 'মৎস্য ও খনিজ সম্পদ কাজে লাগানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রী' * 'ক্ষমতায় গেলে বিএনপি ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টসহ নিবর্তনমূলক আইন বাতিল করবে' * বাইডেনসহ ৯৬৩ মার্কিন নাগরিকের রাশিয়া প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা * 'তেল না পেয়ে পাম্পের মালিকের বাড়িতে আগুন জ্বালিয়ে দিয়েছে বিক্ষুব্ধ জনতা' * 'জো বাইডেনসহ ৯৬৩ মার্কিন নাগরিকের রাশিয়া প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে মস্কো' * কানাডার অন্টারিও ও কুইবেক প্রদেশে ভয়াবহ ঝড়ের আঘাতে নিহত ৪' * 'গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে করোনায় মৃত্যু আট শতাধিক'
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বাধিক আলোচিত
টিএসসিতে ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করেছেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ৫ মিনিটের ঝড়ে প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়ন ম্যানসিটি 'বিশ্বব্যাপী খাদ্যে প্রচণ্ড ঘাটতি দেখা দিবে, যা বছরের পর বছর স্থায়ী থাকবে' 'বিদেশ ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞায় এবার সব বাণিজ্যিক ব্যাংকের কর্মকর্তারা' 'অবৈধ দখলদারদের কাছ থেকে মিরপুর-১২ নম্বরের পল্লবীর ‘ডি’ ব্লকে অবস্থিত মাঠ উদ্ধারের দাবি' 'অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের জামিনের আবেদন নামঞ্জুর' '১৫ কিলোমিটার সড়কে হাজার হাজার মানুষের মানববন্ধন' "অন্তর্বর্তীকালীন ৫০ শতাংশ মহার্ঘ্য ভাতাসহ ৭ দফা দাবি সরকারি কর্মচারী ঐক্য ফোরামের" 'মৎস্য ও খনিজ সম্পদ কাজে লাগানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রী' 'ক্ষমতায় গেলে বিএনপি ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টসহ নিবর্তনমূলক আইন বাতিল করবে'

POOL

দেশের অভ্যন্তরে এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে দেশবিরোধী ও জনগণের স্বার্থ পরিপন্থী নানামুখী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত বিএনপি বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আপনি কি তাঁর সাথে একমত?

Note : জরিপের ফলাফল দেখতে ভোট দিন

'মোড়লগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান ফরিদ বাহিনী কর্তৃক শারীরিক নির্যাতন ও হয়রানীর প্রতিবাদ'

16-04-2022 | 02:43 pm
অন্যান্য

বাগেরহাট জেলার মোড়লগঞ্জ উপজেলার বিদ্রোহী চেয়ারম্যান ফরিদুল ইসলাম ফরিদ ও তার গুন্ডা বাহিনী কর্তৃক অগ্নিসংযোগ, শারীরিক নির্যাতন ও হয়রানীর প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

ঢাকা : বিদ্রোহী চেয়ারম্যান ফরিদুল ইসলাম ফরিদ ও তার গুন্ডা বাহিনী কর্তৃক অগ্নিসংযোগ, শারীরিক নির্যাতন ও হয়রানীর প্রতিবাদে জাতীয় প্রেসক্লাব জহুর হোসেন চৌধুরী হলে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত।

অদ্য ১৬ এপ্রিল ২০২২, শনিবার সকাল ১১:০০ টায় জাতীয় প্রেসক্লাব জহুর হোসেন চৌধুরী হলে নৌকা সমর্থিত প্রার্থীকে ভোট দেয়ার অপরাধে বিদ্রোহী চেয়ারম্যান ফরিদুল ইসলাম ফরিদ ও তার গুন্ডা বাহিনী কর্তৃক অগ্নিসংযোগ, শারীরিক নির্যাতন ও হয়রানীর প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাগেরহাট জেলার মোড়লগঞ্জ উপজেলার ৭নং হোগলাপাশা ইউনিয়ন ৬নং ওয়ার্ডের বারবার নির্বাচিত মেম্বার ও ৭নং হোগলাপাশা ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি দীপক কুমার মাঝি, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নিরাঞ্জন বিহারীর ছেলে নির্যাতিত শিবু রায়, মোঃ জহর খান, মোঃ বেলাল শেখ, অসীম চন্দ্র ডাকুয়া। উক্ত সংবাদ সম্মেলনের সাথে একাত্বতা প্রকাশ করেন বাংলাদেশ মাইনোরিটি ওয়াচের সভাপতি অ্যাড. রবীন্দ্র চন্দ্র ঘোষ ও বাংলাদেশ হিন্দু আইনজীবী পরিষদের সভাপতি অ্যাড. সুমন কুমার রায় ও বিভিন্ন সংগঠনসমূহ।

দীপক মাঝি বলেন, আমরা জন্ম থেকেই আওয়ামী লীগ পরিবারের সদস্য এবং আমি নিজে একজন ইউপি সদস্য ও আওয়ামী লীগের বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের সাথে বিভিন্ন কর্মকান্ডে জড়িত আছি। বিগত ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১ইং তারিখে বর্ণিত হোগলাপাশা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। বিএনপি-জামায়াত সমর্থিতত বিদ্রোহী প্রার্থী মোঃ ফরিদ তার ক্যাডার বাহিনীর পেশী শক্তির মাধ্যমে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মনির শংকর কে পরাজিত করে। এরপর থেকে নৌকার প্রার্থীর পক্ষে যারা কাজ করেছিল তাদের উপর বিভিন্ন সময় নির্যাতন ও নীপিড়নের শিকার হতে হয়। সংখ্যালঘু হিন্দু ও নিরহ মুসলিমদের ভয়-ভীতি প্রদর্শনপূর্বক তার কথিত গুন্ডাবাহিনী ও কিশোর গ্যাং এর মাধ্যমে অত্যাচার ও নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে। এই ক্ষেত্রে কেউ প্রতিবাদ করলে তার নির্যাতনের শিকার হতে হয় এবং তার বিরুদ্ধে একাধিক হত্যা মামলা রয়েছে। সে এলাকায় এমন ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে তার ভয়ে কেউ মুখ খুলতে চায় নায়। এ বিষয়ে প্রশাসনের দ্বারস্ত হয়েও কোন সুফল বা প্রতিকার পাওয়া যায়নি। তেমনই আমি বঙ্গবন্ধুর নৌকা সমর্থিত প্রার্থীর পক্ষে প্রকাশ্যে কাজ করায় বিভিন্ন ভাবে বিভিন্ন সময় আমাকে নির্যাতনের শিকার হতে হয়েছে। আমি প্রশাসন ও সংশ্লিষ্ট আসনের মাননীয় সংসদ সদস্যের কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ করলে তিনি তাকে ডেকে একসাথে কাজ করার জন্য নির্দেশ দেন। কিন্তু পরবর্তীতে তার নির্দেশ উপেক্ষা করে শারিরীক এবং মানসিক নির্যাতন করতে থাকে। বিগত ২৫/০৩/২০২২ইং তারিখে তার কিশোর গ্যাং দ্বারা আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে বাজারে হামলা চালায়। সাথে সাথে আমার মোবাইল ০১৭২৮৮৫৩৩১০ থেকে ৯৯৯ এ ফোন করলে পুলিশ সদস্যরা এসে আমাকে রক্ষা করে। আমি বাড়িতে চলে আসার পর আমার বাড়ির চারপাশে তার গুন্ডাবাহিনীর উপস্থিতি দেখতে পাই। পরে পুলিশকে জানালে পুলিশ জানান আপনি ঘর থেকে বের হবেন না। এরপর আমি ঘুমিয়ে পরি। গভীর রাতে আমার স্ত্রী পোড়া গন্ধে ও শব্দে ঘুম ভেঙ্গে গেলে বাইরে তাকিয়ে দেখে আমাদের বসতঘরের সাথে রক্ষিত কাঠের গুদামে আগুন জ্বলছে। আমার স্ত্রীর চিৎকারে আমার ঘুম ভেঙ্গে যায়। আমি, আমার স্ত্রী ও আমার বৃদ্ধ মায়ের ডাক-চিৎকারে এলাকার প্রতিবেশিরা ও ছোট ভাই ছুটে আসার পরে আমরা দরজা খুলে সকলে মিলে পাশের ডোবা থেকে পানি নিয়ে আগুন নিভাতে সক্ষম হই এবং প্রশাসনকে বিষয়টি অবগত করলে সরেজমিনে এসে পর্যবেক্ষণ করেন। বঙ্গবন্ধুর নৌকায় ভোট দেওয়া এবং শেখ হাসিনার নির্দেশে নৌকা সমর্থন প্রার্থীর পক্ষে কাজ করাই হলো আমার অপরাধ। আমি এখন বাড়ীঘর ও পরিবার, এলাকার জনগণকে ছেড়ে জীবন নিরাপত্তাহীনতা ও উৎকণ্ঠায় ভবঘুরে জীবন-যাপন করছি। আমি এলাকায় গেলে হত্যা ও গুম করবে বলে চেয়ারম্যান প্রকাশ্যে হুমকি দিয়ে আসছে। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমি ও আমার পরিবারের জীবনের নিরাপত্তা ও ন্যায় বিচারের প্রার্থনা করছি এবং এলাকায় গিয়ে পুণরায় জনগণের সেবা করতে পারি সে জন্য পুলিশ-প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করছি।

শিবু রায় বলেন, আমরা জন্ম থেকেই আওয়ামী লীগ পরিবারের সদস্য। আমার বাবা দীর্ঘ ৩০ বছর ধরে উক্ত ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছে। আমাকে এই চেয়ারম্যানের গুন্ডা বাহিনী ধরে নিয়ে প্রকাশ্যে হত্যার উদ্দেশ্যে নির্যাতন করে। একপর্যায়ে আমি পানি চাইলে আমাকে জোর করে প্রস্রাব পান করায়। এরপর তারা আমাকে মৃত ভেবে বেহুশ অবস্থায় নদীর পারে ফেলে গেলে স্থানীয় লোকজন পিরোজপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে খুলনা হাসপাতালে দীর্ঘদিন চিকিৎসা শেষে আমি ঈশ্বরের কৃপায় কোনরকম বেঁচে যায়। এই চেয়ারম্যান ও তার গুন্ডাবাহিনী প্রকাশ্যে বাজারে আমার বাবাকে ধুতি খুলে নেয়ার হুমকি এবং জুতা দিয়ে পিটিয়ে পরিষদে নিয়ে শেখ হাসিনার নৌকা তোর পোদে ঢুকাই দিবো বলে অকথ্য ভাষায় গালি দেয় এবং জীবননাশের হুমকি দেয়। এ বিষয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্যের কাছে অভিযোগ করলে তেমন কোন প্রতিকার পাইনি।

জহর খান বলেন, আমি উক্ত ইউনিয়ন ৭নং ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি। আমি শেখ হাসিনার নির্দেশে বঙ্গবন্ধুর নৌকার সমর্থনে ইউপি নির্বাচনে কাজ করায় উক্ত চেয়ারম্যান আমাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে এবং আমার দোকানপাট বন্ধ করে দেয়। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে ক্ষুদ্র একজন কর্মী হিসেবে ন্যায় বিচার প্রার্থনা করি।

মোঃ বেলাল শেখ বলেন, অসিম ডাকুয়া, জীবন কৃষ্ণ মজুমদার, মোঃ আল-আমিন শেখ, সঞ্জিত মিস্ত্রী, মোঃ আল-আমিন খা, মোঃ ওবায়দুল বেপারী, সঞ্জয় সমাদ্দার, সুবল ডাকুয়া, সুভঙ্কর মাঝি, নিরোদ বিহারী রায়, পুর্ণ চাদ আরিন্দা, মোঃ লিয়োন হাওলাদার, বাদল শীল, পারভেজ হাওলাদার, অবঃ প্রফেসর কার্তিক চন্দ্র ডাকুয়া প্রমুখ ব্যক্তি ও তার ক্যাডার বাহিনী কর্তৃক অত্যাচার ও নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। বর্তমানে এই চেয়ারম্যান এলাকায় এমন ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি করেছেন যাকে নব্য এরশাদ শিকদার হিসেবে এলাকার লোকজন মনে করছেন। এলাকার লোকজন নির্যাতিত হলেও তার ও তার ক্যাডার বাহিনীর ভয়ে মুখ খুলতে ভয় পাচ্ছেন। কিছু কিছু সময় প্রশাসনের কাছে গেলেও কোন সুফল বা প্রতিকার পাওয়া যায়নি। উপরোক্ত বিষয়টি সরেজমিনে সুষ্ঠ তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। সাংবাদিক ভাইদের প্রতি আমাদের নির্যাতিত পরিবারের পক্ষ থেকে উদাত্ত আহ্বান বিষয়টি আপনাদের পত্রিকায় প্রকাশ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে আপনাদের প্রতি কৃতজ্ঞ থাকবো।

কমেন্ট

<<1>>

নাম *

কমেন্ট *

সম্পর্কিত সংবাদ

© ২০১৬ | এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি | dainikprithibi.com
ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্ট - মোঃ রেজাউল ইসলাম রিমন