Breaking News
* 'পুতিন-বাইডেনের প্রথম মুখোমুখি বৈঠক অনুষ্ঠিত' * 'গণমাধ্যমকর্মীদের ৪৫ শতাংশ মহার্ঘভাতা নিশ্চিত করতে আইন প্রণয়ন করা হয়েছে' * 'সরকার একটা ঘটনার পেছনে আরেকটি প্রসঙ্গ দাঁড় করিয়ে দেয়' * 'দুর্নীতি ও অপকর্মের সঙ্গে জড়িতদের কোনোভাবেই মনোনয়ন দেয়া হবে না' * 'যুক্তরাষ্ট্রে শিকাগো ও আলবামা অঙ্গরাজ্যে বন্দুক হামলায় ছয়জন নিহত' * 'পাকিস্তানের পার্লামেন্ট ভবনে তুমুল হট্টগোল ও ধস্তাধস্তি' * 'ইসলামি বক্তা আবু ত্ব-হা আদনানের বিষয়টি শুনেছি, গুরুত্ব দিয়ে দেখছি': স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী * 'সাংবাদিক জামাল খাসোগির হত্যাকাণ্ড নিয়ে নতুন তথ্য' * 'বিশ্বশক্তির সঙ্গে টানাপোড়েনের মধ্যে ইউরেনিয়াম ৬০ শতাংশ সমৃদ্ধ করেছে ইরান' * 'নিপুণ রায় চৌধুরীকে জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট'
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বাধিক আলোচিত
'পুতিন-বাইডেনের প্রথম মুখোমুখি বৈঠক অনুষ্ঠিত' 'বিদেশগামীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ভ্যাকসিন দেওয়ার অনুরোধ বায়রার' 'নিখোঁজ ইসলামী বক্তা আদনানকে ফিরে পেতে প্রধানমন্ত্রী কাছে আকুল আবেদন' 'শেখ হাসিনার জন্ম তারিখ ঠিক আছে কি-না সেটি নিয়ে সংশয় জাফরুল্লাহর' 'সরকার একটা ঘটনার পেছনে আরেকটি প্রসঙ্গ দাঁড় করিয়ে দেয়' 'দুর্নীতি ও অপকর্মের সঙ্গে জড়িতদের কোনোভাবেই মনোনয়ন দেয়া হবে না' '২০ কোটি টাকার সম্পদ আত্মসাতের অভিযোগে মামুনুল হকসহ ৪৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা' 'যুক্তরাষ্ট্রে শিকাগো ও আলবামা অঙ্গরাজ্যে বন্দুক হামলায় ছয়জন নিহত' 'চিত্রনায়িকা পরীমনিকে বোট ক্লাবে পানীয়র সঙ্গে নেশাদ্রব্য খাইয়ে ধর্ষণের চেষ্টা' 'পাকিস্তানের পার্লামেন্ট ভবনে তুমুল হট্টগোল ও ধস্তাধস্তি'

POOL

প্রতিবেশী দেশগুলোর মধ্যে আলাপ-আলোচনা ও সমঝোতার মাধ্যমে যেকোনো সমস্যার সমাধান হওয়া উচিত বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।আপনি কি তার সাথে একমত?

Note : জরিপের ফলাফল দেখতে ভোট দিন

'নিম্নমানের বিটুমিন আমদানির আড়ালে ওভার ইনভয়েসিংয়ের মাধ্যমে টাকা পাচার হচ্ছে'

25-05-2021 | 12:23 am
বিশেষ প্রতিবেদন

বিটুমিন আমদানির আড়ালে অর্থপাচার ঠেকাতে সরকারকে আরো তৎপর হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞ অর্থনীতিবিদরা।

এস এম তাজুল ইসলাম: বিটুমিন আমদানির আড়ালে অর্থপাচার ঠেকাতে সরকারকে আরো তৎপর হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞ অর্থনীতিবিদরা। পাশাপাশি আমদানিকারকদের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করার আহ্বান তাঁদের। একই সঙ্গে নির্ধারিত মানের ওপরে কেউ যাতে নিম্নমানের বিটুমিন দেশে না আনতে পারে সে বিষয়ে কঠোর হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তাঁরা। নিম্নমানের বিটুমিন আমদানি ও এর ব্যবহার বন্ধে সরকার সর্বোচ্চ তৎপর না হলে টেকসই সড়ক নির্মাণ সম্ভব নয় বলেও মনে করছেন তাঁরা।

পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশের (পিআরআইবি) নির্বাহী পরিচালক ও ব্র্যাক ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. আহসান এইচ মনসুর বলেন, ‘নিম্নমানের বিটুমিন আমদানির আড়ালে ওভার ইনভয়েসিংয়ের মাধ্যমে টাকা পাচার হচ্ছে। অর্থাৎ যে দামে বিটুমিন কেনা হচ্ছে তার থেকে অনেক বেশি দাম দেখানো হচ্ছে। এখানে অতিরিক্ত টাকা বিদেশে পাঠিয়ে বা পাচার করে দেওয়া হচ্ছে। উদাহরণ স্বরূপ বলতে পারি ২০০ ডলার দাম দেখানো হলে কিনছে ১০০ ডলারে। বাকি ১০০ ডলার পাচার হয়। ’

নিম্নমানের বিটুমিন প্রসঙ্গে এই গবেষক ও অর্থনীতিবিদ বলেন, ‘আমি যখন দাম কম দিয়ে কিনব তখন অবশ্যই আমি নিম্নমানের জিনিস পাব। এটা খুবই স্বাভাবিক। ২০০ টাকার জিনিস আর ১০০ টাকার জিনিসের মান তো সমান হবে না। এখানে প্রশ্ন হলো—সরকারি কাজে যদি এর ব্যবহার হয় তাহলে কর্তৃপক্ষের উচিত বিটুমিনের মান যাচাই করা। আমরা দেখছি গ্রামাঞ্চলের রাস্তাঘাটে ব্যবহৃত বিটুমিনের মান খুুবই খারাপ। এক বছরের মধ্যে এসব রাস্তা ধসে যায়, দেবে যায় এবং টান দিলে পুরোটা উঠে যায়। ’

তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশে আমদানি করা যে বিটুমিন ব্যবহার করা হয়, পৃথিবীর কোনো দেশ এগুলো অ্যালাউ করবে না। সুতরাং বিটুমিনের মিনিমাম স্ট্যান্ডার্ড নিশ্চিত করা সরকারের দায়িত্ব। নিম্নমানের বিটুমিন আনলে এর ব্যবহার কোথাও না কোথাও হবে। বিশেষ করে সরকারি প্রকল্পেই এগুলোর ব্যবহার হবে। কারণ সরকারি প্রকল্পে বিভিন্ন স্তরে আদান-প্রদান হয়। সে জন্য কোয়ালিটি কম্প্রোমাইজও হয়ে যায়।

বাংলাদেশ ফিন্যানশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (বিএফআইইউ) প্রধান ও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর আবু হেনা মোহাম্মদ রাজী হাসান বলেন, ‘বিটুমিন আমদানিকারকরা যদি অর্থপাচার করে থাকেন তাহলে সেটা দেখার আইনগতভাবে দায়িত্ব আছে আমাদের। অর্থপাচারবিষয়ক কিংবা মানি লন্ডারিং কিংবা সন্ত্রাসে অর্থায়ন—এগুলো প্রতিরোধের দায়িত্ব কেন্দ্রীয়ভাবে বিএফআইইউকে দিয়েছে সরকার। কিন্তু এ বিষয়টি এখনো আমাদের নজরে কেউ আনেনি। আমি এ বিষয়ে ছুটি শেষে ইউনিটে খবর নিব। ’

তিনি বলেন, ‘মানি লন্ডারিং নিয়ে কোনো অভিযোগ কিংবা গণমাধ্যমে কোনো রিপোর্ট এলে সেটা নিয়ে আমরা কাজ করি। আমরা সেগুলো তদন্ত করি এবং সংশ্লিষ্ট আইন প্রয়োগকারী সংস্থাসহ সকলকে এ অভিযোগ তদন্ত করার জন্য প্রেরণ করি। সুতরাং নিম্নমানের বিটুমিন আমদানির আড়ালে যদি অর্থপাচার হয়ে থাকে এমন কোনো রিপোর্ট হলে আমরা অবশ্যই তদন্ত করব এবং আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিব। ’

সিপিডির গবেষণা পরিচালক ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, বিটুমিনের মতো অন্য পণ্যের ক্ষেত্রেও একই অভিযোগ রয়েছে। ওভার ইনভয়েসিংয়ের মাধ্যমে দেশের বাইরে অর্থপাচার আগেও ছিল এখনো আছে। তিনি বলেন, ‘এটা দেখার জন্য আমাদের তরফ থেকে বলা হয়, কেন্দ্রীয় ব্যাংক ও অন্য সংশ্লিষ্ট ব্যাংকগুলো যখন এলসি খোলে তখন এলসি খোলার সময় কী মূল্যমানের কী খোলা হচ্ছে, সেই জিনিসটা দেখা এবং একই সঙ্গে বিশ্ববাজারে ওই সব পণ্যের তথ্য-উপাত্তগুলো খতিয়ে দেখা। ওই মূল্যমানের পণ্য যেটা আমদানিকারকরা ঘোষণা দিচ্ছেন সেটা ঠিক আছে কি না। সেগুলো ক্রস চেক করে দেখা উচিত। সেটা এখানে জরুরি। বিটুমিন আমদানির ক্ষেত্রে এটা করাটা অনেক বেশি জরুরি।

সিপিডির এই গবেষণা পরিচালক বলেন, এখানে যেটা হওয়া দরকার সেটা হলো—ঘোষিত মূল্যের বিপরীতে যখন বিটুমিন আমদানি করা হচ্ছে এবং এলসি যখন সেটেল হচ্ছে, সেই এলসি সেলেমেন্টের তথ্যগুলো বাংলাদেশ ব্যাংকের ফিন্যানশিয়াল ইউনিটের উচিত নমুনা ভিত্তিতে বিভিন্ন ব্যাংকের বড় বড় এলসি এবং চালানগুলো চেক করে দেখা। বিশেষ করে মান ও দামের ক্ষেত্রে কোনো অস্বাভাবিকতা আছে কি না তা দেখা উচিত।

তিনি বলেন, সে ভিত্তিতে মূল্য ঘোষণায় হেরফের পেলে এখানে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উচিত সংশ্লিষ্ট ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে আমদানিকারকদের কাছে ব্যাখ্যা চাওয়া। একই সঙ্গে বিটুমিন আমদানিকারকদের এখানে একটা সিস্টেমের ভেতরে নিয়ে আসতে হবে। আইনগত যেসব বিষয় রয়েছে সেগুলো প্রয়োগ করতে হবে। ইনভেস্টিগেশনের সময় বাংলাদেশ ব্যাংকের উচিত হবে মান নির্ণয়সহ সংশ্লিষ্ট কারিগরি সংস্থাগুলোর কাছে তথ্য চাওয়া এবং তাদের মতামত নেওয়া।

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের (টিআইবির) নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, নিম্নমানের বিটুমিন আমদানিকারকদের এখানে দুটি বিষয় আছে। একটি হলো—তারা নিম্নমানের বিটুমিন এনে অতিরিক্ত মুনাফা করছেন। আরেকটা হলো—প্রক্রিয়াগতভাবে ওভার ইনভয়েসিংয়ের কারসাজি। এই প্রক্রিয়ায় প্রকৃত মূল্য ও অতিরিক্ত মূল্যের মধ্যে একটা গ্যাপ থাকে। এই প্রক্রিয়াগত কারসাজিতে অতিরিক্ত মূল্য ও প্রকৃত মূল্যের মধ্যে যে অর্থটা গ্যাপ থাকে, তা দেশের বাইরে পাচার করা হয়।

তিনি বলেন, নিম্নমানের বিটুমিন আমদানিকারকদের এই প্রক্রিয়ায় অর্থপাচার ঠেকাতে সংশ্লিষ্টদের নজরদারি বাড়াতে হবে। বিশেষ করে বাংলাদেশ ব্যাংকের ফিন্যানশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটকে ঘোষিত পণ্যের দাম ও কোয়ালিটি বিশ্ববাজারে যাচাই করে সংশ্লিষ্টদের চিহ্নিত করতে হবে। একই সঙ্গে তাদের আইনের আওতায় আনতে হবে। তা না হলে এই প্রক্রিয়ায় অর্থপাচার বন্ধ করা যাবে না।

বিটুমিনের মান নির্ধারণ কমিটির সভাপতি ড. মোহাম্মদ জাকারিয়া বলেন, ‘৬০-৭০ গ্রেডের বিটুমিন ব্যবহারের কথা আমরা অনেক দিন ধরে বলে আসছি। যখন থেকে বুয়েট বিভিন্ন ডিপার্টমেন্টে কনসালট্যান্সি পাওয়া শুরু করল বা তারা দেওয়া শুরু করল তখন থেকেই আমরা এই স্লোগান দিচ্ছি যে আমাদের দেশে যে বিটুমিন ব্যবহার করা হচ্ছে এটা অনেক আগের। এটা হলো কমেডিয়াম ট্রাফিকের জন্য এবং যেটা মডারেট কোল্ড ক্লাইমেটের জন্য। আমাদের দেশে যে রকম জলবায়ু এবং আমাদের দেশে যে ট্রাফিক এতে কোনো অবস্থায়ই ৮০-১০০ গ্রেডের বিটুমিন ব্যবহার করা যাবে না। রিসেন্টলি বুয়েট এলজিইডির জন্য একটি মডেল তৈরি করে দিয়েছি, সেখানে আমরা স্পেসিফিক্যালি বলে দিই এলজিইডির সব রাস্তায় আমরা ৬০-৭০ গ্রেডের বেশি বিটুমিন ব্যবহার করতে পারব না এর নিচে করতে হবে। ’

কমেন্ট

<<1>>

নাম *

কমেন্ট *

সম্পর্কিত সংবাদ

© ২০১৬ | এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি | dainikprithibi.com
ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্ট - মোঃ রেজাউল ইসলাম রিমন